“ইমেইল মার্কেটিং” [পর্ব-০৪] :: [টিউটোরিয়াল ৪র্থ + ১০ম] মেইলচিম্প(MailChimp) কি এবং এর সুবিধা ও অসুবিধা

সবাইকে স্বাগতম জানাচ্ছি “প্রফেশনাল ইমেইল মার্কেটিং শিখুন, সফল ক্যারিয়ার গড়ুন” এর (চতুর্থ + দশম) স্পেশাল পর্বে । তার মানে [০৪-পর্ব:: (প্রোজেক্ট-১) MailChimp দিয়ে ইমেইল টেমপ্লেট তৈরি করা + ১০-পর্ব :: “MailChimp” এর A to Z ব্যবহার এবং email Campaign সেটআপ করা ] এই পর্ব দুটোকে একত্রিত করে “MailChimp” উপর একটি পূর্ণাঙ্গ টিউটোরিয়াল তৈরি করা হয়েছে। আর আপনাদের কথা দিচ্ছি, এই পর্বে আপনাদেরকে “মেইলচিম্প” এর মাষ্টার বানিয়ে দেব ইনশাল্লাহ ।

গত পর্বে যা যা ছিল

ইমেইল টেমপ্লেট তৈরিতে ফটোশপ এর ব্যবহার ও প্রয়োগ, ইমেইল টেমপ্লেট তৈরিতে এইচটিএমএল ও সিএসএস এর ব্যবহার ও প্রয়োগ এবং আর সাথে ছিল, ইমেইল টেমপ্লেট তৈরিতে ফটোশপ, এইচটিএমএল ও সিএসএস এর ব্যবহার পদ্ধতি ও ইমেইল টেমপ্লেট তৈরির প্রাথমিক ধারণার ভিডিও টিউটোরিয়াল ।

গত পর্বের টিউন দেখুন এখানেঃ http://www.techtunes.com.bd/tutorial/tune-id/290973

গত পর্বের ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখুন এখানেঃ https://www.youtube.com/watch?v=_pFVM9Y_zhk

স্পেশাল এই ( চতুর্থ + দশম )পর্বে যা যা থাকছে

  • মেইলচিম্প(MailChimp) কি এবং এর সুবিধা ও অসুবিধা
  • মেইলচিম্প(MailChimp) এর বেসিক ব্যবহার
  • মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে এডিট করে ইমেইল টেমপ্লেট তৈরি
  • মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ email Campaign সেটআপ
  • শুধু মেইলচিম্প(MailChimp) শিখেই আউটসোর্সশিং করার কিছু টিপস ও গাইডলাইন

আর সাথে থাকছে, “মেইলচিম্প(MailChimp) এ মাষ্টার হওয়ার উপর একটি মেগা ভিডিও টিউটোরিয়াল ।

শুরুতে একটি কথা বলে নেইআপনাদের, এই স্পেশাল টিউটোরিয়ালে খুব প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো টিউন আকারে লিখা হয়েছে এবং প্রাক্টিকাল বিষয়গুলো ভিডিও টিউটোরিয়াল আকারে বোঝানো হয়েছে । আপনি যদি শুধু টিউনটা পড়লেন বা শুধু ভিডিও টিউটোরিয়ালটা দেখলেন তা হলে ভাল ভালে বুঝতে পারবেন না । তাই আমার পরামর্শ থাকবেন আপনি টিউন ও ভিডিও টিউটোরিয়াল দুটোই ভালভাবে পড়ে ও দেখে নিবেন ।

১। মেইলচিম্প(MailChimp) কি এবং এর সুবিধা ও অসুবিধা

সহজ ভাষায়, মেইলচিম্প(MailChimp) হল ইমেইল সেন্ডিং করার একটা কোম্পানি বা প্ল্যাটফর্ম । আপনি মেইলচিম্প(MailChimp) এর ইমেইল সার্ভার ব্যবহার করে হাজার হাজার মেইল এক সাথে পাঠাতে পারবেন । অর্থাৎ পার্সোনাল সার্ভার না থাকলে মেইলচিম্প(MailChimp) কে ভাড়া করে তাদের ইমেইল সার্ভার ব্যবহার করে মেইল পাঠাতে পারবেন ।

আরও সহজ করে বলছি, ধরুন, আপনার কোন মালামাল ঢাকা থেকে জামালপুর শহরে পাঠাবেন মালবাহী ট্রেনে করে । অর্থাৎ রেলওয়ে প্ল্যাটফর্ম থেকে ভাড়াকৃত মালবাহী ট্রেন মাধ্যমে আপনার কোন মালামাল ঢাকা থেকে জামালপুর শহরে পাঠানো হবে । এখানে মালামাল যদি ইমেইল হয়, আর মালবাহী ট্রেন যদি ভাড়াকৃত মেইলচিম্প (MailChimp) এর ইমেইল সার্ভার হয়, তাহলে মেইলচিম্প (MailChimp) কোম্পানি হবে রেলওয়ে প্ল্যাটফর্ম । আশা করি বোঝাতে পেরেছি, মেইলচিম্প (MailChimp) আসলে কি !

মেইলচিম্প (MailChimp) এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল আপনি ফ্রীতে মাসে ১২ হাজার ইমেইল সেন্ড করতে পারবে, ২ হাজার ইমেইল সবস্ক্রাইব তৈরি করতে পারবেন, কোন প্রকার এইচ টি এম এল (html), সি এস এস(css) বা ফটোশপের উপর ধারণা ছাড়াই আপনি সুন্দর ও প্রফেশনাল মানের ইমেইল টেম্পলেট তৈরি করতে পারবেন এবং মেইলচিম্প (MailChimp) এর ব্যবহার এতোটাই সহজ যে, ক্লাস ফাইভে পড়া আমার ভাগ্নে রোহানও এটা ব্যবহার করতে পারেন । তাহলে বুঝতেই পারছেন, কেন আপনাদের মেইলচিম্প (MailChimp) এর মাষ্টার বানানোর কথা দিয়েছি ।

এবার আসি অসুবিধা কি আছে । মেইলচিম্প (MailChimp) এর দুই ধরনের সার্ভিস আছে, একটি ফ্রী আরেকটি পেইড । স্বভাবতইফ্রী সার্ভিস এ কিছু সুবিধা কম থাকবেই । যেমন, ফ্রী সার্ভিস চেয়ে পেইড সার্ভিস এ বেশী পরিমান মেইল সেন্ড করতে পারবেন, বেশী পরিমান সবস্ক্রাইব তৈরি করতে পারবেন ইত্যাদি । ফ্রী সার্ভিসে আপনি অটোস্পন্ডার ব্যবহার করতে পারবেন না । ফ্রী সার্ভিসের সবচেয়ে বড় অসুবিধা হল আপনি যতবার ইমেইল পাঠাবেন ততবার মেইলচিম্প (MailChimp) এর লোগোকে কোলে নিয়ে মেইল পাঠাতে হবে । মানে খুব ছোট বাচ্চাদের যেমন ট্রেনে টিকেট ফ্রী কিন্তু বসতে হয় ফ্যামিলির কারো কোলে ( কারণ, ফ্রী টিকেটে সিট নাই J )। ঠিক তেমনি, যেহেতু তাদের সার্ভিস ফ্রী ব্যবহার করছেন, তাই তারা আপনার প্রচারের সাথে সাথে নিজেদের মেইলচিম্প (MailChimp) এর লোগো জড়ে দিয়ে তাদের প্রচারও করিয়ে নিচ্ছে । এছাড়া, মেইলচিম্প (MailChimp) এর পেইড সার্ভিসের খরচও অনেক বেশী । তার চেয়ে পার্সোনাল ইমেইল সার্ভারের খরচ অনেক কম ।

২। মেইলচিম্প(MailChimp) এর বেসিক ব্যবহার

মেইলচিম্প(MailChimp) এর বেসিক ব্যবহার বলতে কিভাবে মেইলচিম্প(MailChimp) এর সাইনআপ ও একটিভিটেড করবেন, প্রোফাইল তৈরি করবেন এবং মেইনটেইন করবেন ইত্যাদি । এটা আসলে খুব বেশী কঠিন কিছু না । আপনি যদি ফেসবুক আকাউন্ট ও আপনার প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন তাহলে www.MailChimp.com গিয়েও মেইলচিম্প(MailChimp) এর আকাউন্ট ও আপনার প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন । শুধু তাই না ফেসবুকে যেমন আপনি যখন খুশি তখন কোন কিছু পরিবর্তন বা সংযোজন করতে পারেন ঠিক তেমনই মেইলচিম্প(MailChimp)ও করতে পারবেন । তার পরেও যদি আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকে তা ভিডিও টিউটোরিয়ালটা দেখার পর দূর হয়ে যাবে ।

৩। মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে এডিট করে ইমেইল টেমপ্লেট তৈরি

সাধারণত এইচ টি এম এল ইমেইল টেম্পলেট (html Email Template ) তৈরি করতে আপনাকে খুব বেশী না হলেও মোটামুটি এইচ টি এম এল, সি এস এস বা ফটোশপের উপর জ্ঞান থাকতে হবে । কিন্তু মেইলচিম্প(MailChimp) সাহায্যে কোন প্রকার এইচ টি এম এল(HTML), সি এস এস(CSS) এর কোড ব্যবহার না করেও আপনি দৃষ্টিনন্দন প্রফেশনাল মানের ইমেইল টেম্পলেট তৈরি করতে পারবেন ।

মেইলচিম্প(MailChimp) এর আকাউন্ট লগইন করার করার পর বামপাশে একটি ছোট বটন থেকে টেম্পলেট এ ক্লিক করতে হবে । তারপর ক্রিয়েট টেম্পলেট(Crate Template) এ ক্লিককরলে দেখতে পাবেন, অনেক ধরনের এইচটিএমএল ইমেইল টেম্পলেট যা মেইলচিম্প(MailChimp) কোম্পানি আগে থেকে করে রেখেছে তার গ্রাহকদের সুবিধার জন্য । আপনি শুধু তা এডিট করবেন মানে ঐ এইচটিএমএল ইমেইল টেম্পলেটে যে লিখা ও ছবি আছে তা পরিবর্তন করে আপনি আপনার লিখা ও ছবি যুক্ত করবেন (এম এস ওয়ার্ড এর মত )। ব্যাস কাজ শেষ তৈরি হয়ে যাবে জোশ এইচটিএমএল ইমেইল টেম্পলেট কোন পরিশ্রম ছাড়াই । শুধু কিছু অপশনের ব্যবহার করার নিয়ম ও আমার কিছু টিপস পুরোপুরি বুজতে পারলেই আপনি মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে সেইরকম J ইমেইল টেমপ্লেট তৈরি করতে পারবেন ।

মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়েটেম্পলেট তৈরি করার সময় খেয়াল রাখবেন আপনি যে কোম্পানি বা ওয়েবসাইটের জন্য ইমেইল টেম্পলেট তৈরি করছেন তা যেন ঐ কোম্পানি, প্রডাক্ট বা ওয়েবসাইটের সাথে মিল থাকে । মানে ওয়েবসাইট ব্যাকগ্রাওন্ড কালার, ইমেজ, লোগো, টেক্সট ইত্যাদি । এতে আপনার ইমেইল টেম্পলেট বেশী প্রফেশনাল মনে হবে ।

৪। মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ email Campaign সেটআপ

মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়েemail Campaign সেটআপর আগে প্রথমে যা করতে হবে তা হল প্ল্যান । কারণ প্ল্যান ছাড়া কোন কাজই সফলভাবে সম্পূর্ণ হয় না । প্ল্যানে থাকবে, ইমেইল লিস্ট তৈরি ও বাছাইকরণ, তারপর ইমেইল টেম্পলেট তৈরিকরণ এবং তা ঠিক আছে কিনা এর জন্য টেস্ট ইমেইল পাঠানো আর ফাইনালি ইমেইল সেন্ড করা ।

প্রথমে ইমেইল লিস্ট সংগ্রহ করে তা একটা নাম দিয়ে মেইলচিম্প(MailChimp) এ লিস্টটা আপলোড করতে হবে । লিস্টটি আপনি .txt ফরম্যাট বা .csv ফরম্যাট আপলোড করতে পারবেন । চাইলে ফাস্ট ও লাস্ট নেম এড করতে পারবেন। আলাদা আলাদা বিষয়ের আলাদা আলাদা নামে ইমেইল লিস্টটি করে রাখলে আপনার কাজের অনেক সুবিধা হবে ।

ইমেইল টেম্পলেট তৈরি বা এডিট করা সম্পর্কে আমি আগেই বলেছি । আর ইমেইল টেস্টিং বলতে আপনি ইমেইল পাঠানোর আগে নিজের ইমেইলে একটা মেইল পাঠায়ে দেখবেন যে আপনার মেইলটা ঠিকঠাক যায় কিনা । আর ইমেইল টেম্পলেটে সব কিছু ঠিকঠাক শো কিনা ।

আর সবশেষে আপনার সিলেক্টেড ইমেইল লিস্ট থেকে ইমেইল পাঠাবেন এবং পরো প্রক্রিয়াটাকে মেইলটেইন করবেন । মানে সব কিছু ঠিকঠাক চলছে কিনা, আপনার ইমেইল ওপেন হচ্ছে কি না ইত্যাদি ।

৫। শুধু মেইলচিম্প(MailChimp) শিখেই আউটসোর্সসিং করার কিছু টিপস ও গাইডলাইন

মেইলচিম্প(MailChimp)এর উপর অনেক কাজ রয়েছে মার্কেটপ্লেসগুলোতে ( odesk, elance, freelancer, guru )। আপনি মার্কেটপ্লেসগুলোতে সার্চ করলে দেখতে পাবেন, মেইলচিম্প(MailChimp) দিয়ে মেইল পাঠানোর কাজ, ইমেইল টেমপ্লেটএডিট করে নতুনটেমপ্লেটতৈরির কাজ, মেইলচিম্প(MailChimp) মেইনটেইন ও ইমেইল হ্যান্ডেলিং এর কাজ ইত্যাদি । তাই মেইলচিম্প(MailChimp) এর ভিডিও টিউটোরিয়ালটি মনযোগ দিয়ে দেখুন আর ভালভাবে প্র্যাকটিস করুন । যখনই কোন প্রবলেম এ পড়বেন তখনই গ্রুপে প্রশ্ন করেন আপনি যথাসম্ভব আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দিব ইনশাল্লাহ ।

মার্কেটপ্লেসগুলোতে আকাউন্ট তৈরি, প্রফেসনাল প্রোফাইল তৈরি, জব সিলেকশন, বিড করার পদ্ধতি, কভার লেটার লেখার কৌশল, ইন্টারভিউ ইত্যাদি ভালভাবে শেখার জন্য জেনেসিস ব্লগের কর্ণধার ইকরাম ভাই এর তিন পর্বে আউটসোর্সসিং শিখুন এই পর্ব গুলো পড়ে শুরু করুন । লিংক গুলো নিচে দেওয়া হল

আর আমার পক্ষ থেকে কিছু স্পেশাল টিপস

১। আপনার প্রোফাইল এমন প্রফেশনালভাবে তৈরি করবেন, যাতে বিড না করেও উল্টো আপনাকেই বায়ার জবের জন্য অফার করে ।

২। যত বেশী সম্ভব পোর্টফলিও যুক্ত করুন এবং পোর্টফলিও এর ছবিতে মারকিং করে বুঝিয়ে দিন যে আপনি কাজ তা কিভাবে করবেন বা করতে পারেন । আর অবশ্যই প্রতিটির ডেসক্রিবসন খুব সুন্দরভাবে গুছিয়ে লিখবেন যাতে বায়ার বুঝতে পারেন যে, আপনি কাজটি ভালভাবে করতে পারবেন ।

৩। কভারলেটার কখনো কপি পেস্ট করে লিখবেন না । প্রথমে জব ডেসক্রিবসনটা খুব ভালভাবে পড়ে নিবেন, মিনিমাম তিন থেকে চার বার । তারপর সেখান থেকে জব বা বায়ারের দুর্বলতা খুজে বের করবেন । আর দুর্বলতা পাওয়ার সাথে সাথেই অ্যাটাক তাহলেই, “কিস্তিমাৎ ! বিষয়টা একটু বুঝিয়ে বলছি, ধরুন নিউসপেপারে বিজ্ঞাপন দিয়েছে,

পাত্রী চাই

ঢাকায় সুপ্রতিষ্ঠিত, উচ্চতা ৪.৫ ফিট ও সুদর্শন ডাক্তার পাত্রের জন্য সুন্দরী, ভদ্র ও নামাযী পাত্রী চাই । যোগাযোগঃ ………………।

বলুন দেখি, ঐ পাত্রকে বিয়ে করতে হলে পাত্রীর কোন যোগ্যতা বেশী প্রয়োজন ?

সুন্দরী ? না, সুন্দরী তো অনেকেই আসে । আর ভদ্র ও নামাযী না হলেও হয়ে যাওয়া যাবে । তাহলে কি হতে পারে পাত্রীর বিশেষ যোগ্যতা ?

বিজ্ঞাপনে দেওয়া আছে পাত্রের উচ্চতা ৪.৫ ফিট । তারমানে আর চেয়ে লম্বা হলে পাত্রী রিজেক্ট । তাই পাত্রীকে হতে হবে ৪.৫ ফিটের নিচে । যা তার বিশেষ যোগ্যতা আর পাত্রের দুর্বলতা । এখান পাত্রের জাইগায় বায়ার আর পাত্রীর জাইগায় আপনাকে বসান জব কবুল হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ

৪। কাজ পাওয়ার পর বায়ার সাথে সব সময় ভাল রিলেশন রাখুন যাতে পরবর্তীতে তার কাজগুলোও যাতে আপনিই পান । ( আর একটা কথা, ভাল রিলেশন মানে এমন নয় যে বায়ারকে আপনি জিজ্ঞাসা করলেন, তোমার গার্লফ্রেন্ড আসে নাকি ?? )

৫। এছাড়া ফাইভার এই সাইটগুলতেও আপনি মেইলচিম্প(MailChimp) এর বিভিন্ন সার্ভিস সেল করে আয় করতে পারেন ।

আরেকটা বিশেষ কথা, এক সপ্তাহ আগে গ্রুপের কিছু মেম্বার আমার কাছে জানতে চেয়েছেন আপনি যা শেখাছেন তা আমরা কতটুকু শিখতে পাচ্ছি তা নির্ণয় করা উচিৎ । তা না হলে আমারা বেশী দূর আগাতে পারব না । তাই এই চিন্তা করে টিউটোরিয়ালটা ২ ঘণ্টার জায়গায় ১ ঘণ্টা প্লাস করা হইছে । বাকিটা হবে প্রাকটিস করার সমায় যে যে প্রবলেমে পড়বেন আমায় আথবা গ্রুপ প্রশ্ন করবেন । সেই প্রশ্নগুলোর ওপর ভিত্তি করে পবরতী পর্বের সাথে একটা মেইলচিম্প(MailChimp) এর অতিরিক্ত ভিডিও টিউটোরিয়াল বোনাস হিসাবে থাকবে । কারণ, আমি তোঁতা পাখির মত যতটুকু শিখিয়ে দিব আপনি শুধু ততকুটুই শিখবেন, মাষ্টার হতে পারবেন না। মাষ্টার হতে হলে আপনাকে প্র্যাকটিস করতে হবে ও প্রবলেম বের করতে হবে । এতেই নির্ণয় হবে টিউটোরিয়াল গুলো কি শুধু হার্ডডিস্কে জমা থাকছে নাকি আপনি শিখতে পাছেন ।

সবার জন্য একটা কথা, প্রশ্ন না করলে আপনি শিখতে পারবেন না । তাই শিখতে গিয়ে কোন প্রবলেমে পরলে তা নিয়ে গ্রুপে গ্রুপ ডিসকাশন করে সমাধান করে নিতে পারবেন আপনার সমস্যাগুলি । আর না হলে সারাজীবন এভাবেই কেটে যাবে কোন লাভ হবে না । সুতরাং, একজন আরেকজনকে প্রশ্ন ও সহযোগিতা করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে ।

চতুর্থ পর্বের হোমওয়ার্ক

এবারের পর্বের হোমওয়ার্ক হল মেইলচিম্প(MailChimp) এর আকাউন্ট ও প্রোফাইল তৈরি করবেন, যে কোন একটি ইমেইল টেমপ্লেটএডিট করে নতুনটেমপ্লেটতৈরি করবেন এবং আমাকে একটা মেইলচিম্প(MailChimp)এর মাধ্যমে সুন্দর ইমেইল টেমপ্লেটতৈরি করে এই মেইল এড্রেসে (emailmarketersbd@gmail.com) পাঠাবেন, যাতে আমি বুঝতে পারি আপনাদেরকে কতটুকু শিখাতে পারলাম ।

৫ম পর্বে যা থাকবে

৫ম পর্বে থাকবে এইচটিএমএল ইমেইল টেমপ্লেট এডিট করে নতুন ইমেইলটেমপ্লেট তৈরির কলাকৌশল । যারা নতুনদের ও যাদের ইমেইল টেমপ্লেট খুব একটা দরকার হই না এবং যারা অল্প সময়ে প্রফেশনাল মানের ইমেইলটেমপ্লেট জন্য এটা বেশ কার্যকরী । সাথে থাকবে স্পেশাল টিপস ও ম্যাজিক ভিডিও টিউটোরিয়াল । আর আপনাদের মেইলচিম্প(MailChimp)এর বিভিন্ন প্রবলেম ও প্রশ্নের উপর ভিত্তিতে বোনাস ভিডিও টিউটোরিয়াল ।

আজ আর নয় ইমেইল মার্কেটিং এর চতুর্থ পর্বের আমন্ত্রণ জানিয়ে শেষ করছি আজকের টিউটোরিয়াল। সে পর্যন্ত ভালো থাকবেন আর টিউনটি শেয়ার করবেন করে ভুলবেন না ।

“ইমেইল মার্কেটিং” এই সম্পর্কিত অন্য আরো কিছু জানার জন্য ফেসবুক গ্রুপে প্রশ্ন করতে পারেন ।

ফেসবুকে আমি

এই টিউন প্রথমে জেনেসিস ব্লগে প্রকাশিত

Previous
Next Post »

পোস্ট সম্পর্কিত সমস্যার জন্য মন্তব্য দিন।ডাউনলোড লিঙ্ক এ সমস্যা জন্য ইনবক্স করুন Aimzworld007
ConversionConversion EmoticonEmoticon

Thanks for your comment