ফায়ারওয়াল বৃত্তান্ত – জেনে নিন ফায়ারওয়াল কী, কেন প্রয়োজন এবং কীভাবে ব্যবহার করবেন।

ফায়ারওয়াল কী এবং কেন প্রয়োজন?

ফায়ারওয়াল কথাটির সাধারন মানে হলো আগুনের দেয়াল। অতীত ইতিহাসে রাজা বাদশাহদের বাড়ির নিরাপত্তার জন্য তাদের প্রাসাদের চারপাশে পরিখা (অনেক গভীরতার নালা আকৃতির গর্ত) খনন করা হতো। যাতে কেউ তাদের প্রাসাদে অযাচিতভাবে ঢুকতে না পারে। কিন্তু বর্তমানে সেই পদ্ধতির অনুরূপ উদ্দেশ্য নিয়ে কিন্তু ভিন্ন সিস্টেমে মাইক্রোসফট কর্পোরেশন তাদের অপারেটিং সিস্টেম তথা আপনার কম্পিউটারকে রক্ষার জন্য এক নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে যাকে আমরা বলি ফায়ারওয়াল। মাইক্রোসফট কর্পোরেশন তাদের অপারেটিং সিস্টেমে এটা শুরু করলেও অনেক এন্টিভাইরাস বা থার্ডপার্টি সফটওয়্যার ফায়ারওয়াল সেবা দিয়ে থাকে। তবে ফায়ারওয়াল নিয়ে আরও কিছু বলার আগে চলুন ফায়ারওয়ালের একটি প্রতীকি ছবি দেখে নেই। কারন কথার চাইতে ছবি অনেক তাড়াতাড়ি বুঝাতে সক্ষম।

এক নজরে দেখে নিন ফায়ারওয়াল কীভাবে কাজ করে

ফায়ারওয়াল মুলত বাইরের আক্রমণ থেকে এক বা একাধিক কম্পিউটার কে রক্ষা করার জন্য হার্ডওয়্যার আর সফটওয়্যার এর মিলিত প্রয়াস। ফায়ারওয়াল এর সবচেয়ে বহুল ব্যবহার লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক এর ক্ষেত্রে। তথ্য নিরাপত্তা রক্ষাও এর কাজের অংশ। ফায়ার ওয়াল হল এক বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা যাতে এক নেটওয়ার্ক থেকে আরেক নেটওয়ার্কে ডাটা প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। সেক্ষেত্রে দুই নেটওয়ার্কের মাঝে এই ফায়ারওয়াল থাকে। যারফলে এক নেটওয়ার্ক থেকে আরেক নেটওয়ার্কে কোন ডাটা পরিবাহিত হলে সেটিকে অবশ্যই ফায়ারওয়াল অতিক্রম করতে হয়। ফায়ারওয়াল তার নিয়ম অনুসারে সেই ডাটা নিরীক্ষা করে দেখে এবং যদি দেখে যে সে ডাটা ওই গন্তব্যে যাওয়ার অনুমতি আছে তাহলে সেটিকে যেতে দেয়। আর তা না হলে সেটিকে ওখানেই আটকে রাখে। আজকের টিউনের বাকী অংশে আমরা দেখবে কীভাবে ফায়ারওয়াল দিয়ে কোন প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যারের ইন্টারনেট এক্সেস বন্ধ করে রাখা যায়।

উইন্ডোজ ফায়ারওয়াল, যেভাবে ব্যবহার করতে হয়

উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে যদি কোন এন্টিভাইরাস সফটওয়ার ইনস্টল করা না থাকে তাহলে আপনি উইন্ডোজ ফায়ারওয়াল দিয়ে কোন সফটওয়্যারের ইন্টারনেট কানেকশন ব্লক করতে পারবেন। কোন সফটওয়্যারের ইন্টারনেট কানেকশন ব্লক করার সব চেয়ে সহজ প্রকৃয়াটি আমি দেখিয়ে দিচ্ছি। আশা করি আপনাদের বুঝতে কোন সমস্যা হবেনা।

  • প্রথমে আপনি কিবোর্ড থেকে Window + R প্রেস করে Run Command চালু করুন। তারপর কমান্ড বক্সে নিচের চিত্রের মতো করে Firewall.cpl টাইপ করুন।

  • এবার নিচের চিত্রের মতো উইন্ডো প্রদর্শিত হবে। বামপাশে চিহিৃত অংশে ক্লিক করুন।

  • এবার নিচের চিত্রের মতো উইন্ডো দেখতে পাবেন। খেয়াল করুন চিহিৃত অংশে কিছু প্রোগ্রামে টিক মার্ক দেওয়া আছে আবার কিছু প্রোগ্রামে দেওয়া নেই। চিহিৃত অংশে যে সমস্ত প্রোগ্রামে টিকমার্ক দেওয়া আছে তারা ইন্টারনেট এক্সেস করতে পারবে আর যাদের টিকমার্ক দেওয়া নেই তারা ব্লকড। এখন আপনি যে প্রোগ্রামের ইন্টারনেট এক্সেস বন্ধ করতে চান সেটার বামপাশের টিকমার্ক তুলে দিন। তারপর ওকে করুন, আপনার প্রোগ্রামটি ব্লক হয়েছে।

  • আর যদি আপনার কাঙ্খিত প্রোগ্রাম উপরের লিস্টে না থাকে তাহলে উপরের চিত্রে চিহিৃত Allow Another Program অংশে ক্লিক করুন। তারপর নিচের মতো চিত্র দেখতে পাবেন। আপনার পছন্দের প্রোগ্রাম ব্রাউজ করে লিস্টে যুক্ত করুন এবং তারপর সেটাকে ব্লক করার জন্য বামপাশের টিকমার্ক তুলে দিন। আপনার কাজ শেষ, কী মনে হলো সহজ নাকি কঠিন? আপনার মতামত অবশ্যই টিউমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।

এন্টিভাইরাসের ফায়ারওয়াল, যেভাবে ব্যবহার করতে হয়

আপনারা যারা এন্টিভাইরাস ব্যবহার করেন তারা উইন্ডোজের ডিফল্ট ফায়ারওয়াল প্রোগ্রামটি ব্যবহার করতে পারবেন না। তাদের এন্টিভাইরাসের নিজস্ব ফায়ার ওয়াল প্রোগ্রাম ব্যবহার করতে হবে। আমি জানিনা আপনারা কে কোন এন্টিভাইরাস ব্যবহার করেন। কিন্তু অনুমানের ভিত্তিতে জনপ্রিয় ৫টি এন্টিভাইরাসের ফায়ারওয়াল দিয়ে অ্যাপ্লিকেশন ব্লক করার উপায় বলে দিচ্ছি।

    কাসপারস্কি ইন্টারনেট সিকিউরিটিঃ
  • কাসপারস্কি ইন্টারনেট সিকিউরিটি দিয়ে কীভাবে কোন অ্যাপ্লিকেশনকে ইন্টারনেট এক্সেস থেকে ব্লক করা যায় সেটা জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

    কাসপারস্কি ফায়ারওয়াল

    নরটন ইন্টারনেট সিকিউরিটিঃ
  • নরটন ইন্টারনেট সিকিউরিটি দিয়ে কীভাবে কোন অ্যাপ্লিকেশনকে ইন্টারনেট এক্সেস থেকে ব্লক করা যায় সেটা জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

    নরটন ফায়ারওয়াল

    ইসেট ইন্টারনেট সিকিউরিটিঃ
  • ইসেট ইন্টারনেট সিকিউরিটি দিয়ে কীভাবে কোন অ্যাপ্লিকেশনকে ইন্টারনেট এক্সেস থেকে ব্লক করা যায় সেটা জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

    ইসেট ফায়ারওয়াল

    এভিজি ইন্টারনেট সিকিউরিটিঃ
  • এভিজি ইন্টারনেট সিকিউরিটি দিয়ে কীভাবে কোন অ্যাপ্লিকেশনকে ইন্টারনেট এক্সেস থেকে ব্লক করা যায় সেটা জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

    এভিজি ফায়ারওয়াল

    এভাস্ট ইন্টারনেট সিকিউরিটিঃ
  • এভাস্ট ইন্টারনেট সিকিউরিটি দিয়ে কীভাবে কোন অ্যাপ্লিকেশনকে ইন্টারনেট এক্সেস থেকে ব্লক করা যায় সেটা জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

    এভাস্ট ফায়ারওয়াল

আশা করি আপনারা সফলভাবে আপনাদের কাঙ্খিত সফটওয়্যারগুলো ফায়ারওয়াল দিয়ে ব্লক করতে পেরেছেন।

Previous
Next Post »

পোস্ট সম্পর্কিত সমস্যার জন্য মন্তব্য দিন।ডাউনলোড লিঙ্ক এ সমস্যা জন্য ইনবক্স করুন Aimzworld007
ConversionConversion EmoticonEmoticon

Thanks for your comment